৬৫ দিন পর সাগরে মাছ ধরা শুরু, উৎসবের আমেজ উপকূলজুড়ে

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরায় দীর্ঘ ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে শুক্রবার (২৩ জুলাই)। আজ মধ্যরাত থেকে ইলিশ শিকারে সমুদ্রে যাবে উপকূলীয় জেলেরা। তাই জেলে পল্লীগুলোতে কর্মতৎপরতা ফিরে আসতে শুরু করেছে। জাল ও নৌকা প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় পার করছে জেলেরা। প্রতিটি নৌকায় চলছে ধোয়া-মোছা ও মেরামতের কাজ। উপকূলজুড়ে চলছে উৎসবের আমেজ। দীর্ঘ দিন মাছ ধরা বন্ধ থাকায় কষ্টে থাকা জেলেদের মুখে ফুটে উঠেছে হাসি। ব্যস্ততা দেখা গেছে বরফ কলগুলোতেও।

দক্ষিণাঞ্চলের বৃহৎ মৎস্যবন্দর আলীপুর-মহিপুরসহ কুয়াকাটা সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় দেখা গেছে এমন দৃশ্য।

বঙ্গোপসাগরে থাকা মাছগুলোকে সঠিকভাবে বেড়ে উঠার সুযোগ সৃষ্টি করা এবং নির্বিঘ্নে মাছের প্রজনন নিশ্চিত করতে গত ২০ মে থেকে ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করে মৎস্য বিভাগ।

জেলেরা জানান, নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগে জালে যে হারে ইলিশ ধরা পড়েছিল, এখন তার চেয়ে বেশি ইলিশ জালে আটকা পড়তে পারে। ইতোমধ্যে সাগরে প্রায় সব মা মাছই ডিম ছেড়ে দিয়েছে।

জেলেরা নৌকা ও জাল মেরামতসহ সব রকম প্রস্তুতি সেড়ে ফেলেছেন। অনেকে নৌকায় জাল তোলার কাজ করছেন।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতসহ জেলে পল্লী ঘুরে দেখা গেছে, চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনার পাশাপাশি ওষুধ কিনতে ব্যস্ত জেলেরা। একেকটি ট্রিপের জন্য ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকার মালামাল কিনছেন বলে জানান তারা।

পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্লাহ সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, এ বছর জেলেদের জালে প্রচুর বড় ইলিশ মাছ ধরা পড়বে বলে আমরা আশাবাদি। জেলেদের নিরাপদে মৎস্য শিকার নিশ্চিত করতে যৌথবাহিনী জলদস্যু দমনে কাজ করছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.