সারাদেশ

স্থানীয় সরকার সচিব- এর দৃষ্টি আকর্ষন-২ || চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালী করণ প্রকল্পে- সরকারী নীতিমালা মেনে অপেক্ষাকৃত-জ্যেষ্ঠ- প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ করা হবে কি?

  অনক আলী হোসেন শাহিদী ঃ ৮ জানুয়ারি ২০২৪ , ৮:১৩:৩৭ প্রিন্ট সংস্করণ

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এল জি ই ডি) কর্তৃক চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের জন্যে প্রস্তাবিত প্রকৌশলী এস কে আরিফুল ইসলামের নাম সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সভায় অবশেষে বাতিল হয়েছে। গত ৩১’শে ডিসেম্বর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ-সচিব এর সভাপতিত্বে ঐ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উল্লেখ যে- ঐ প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে তার কর্ম জীবনে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ ছিল। এ বিষয়ে বিগত ২৮ ডিসেম্বর ‘‘দৈনিক সমাজ সংবাদ’’ এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সংশ্লিষ্ট প্রকল্পে- প্রকল্প পরিচালক পদে এস কে আরিফুল ইসলামের নাম বাদ পড়ার সাথে সাথে বেশ কিছু প্রকৌশলী-উক্ত প্রকল্পের-প্রকল্প পরিচালক হতে নানা ভাবে তদবীর শুরু করেছেন। এ সব তদবীররাজ প্রকৌশলীদের মধ্যে প্রকৌশলী আমিনুর রশিদ চৌধুরীর নাম ও শোনা যাচ্ছে। জ্যেষ্ঠতার গননায় ঐ প্রকৌশলীও বাদপড়া প্রকৌশলী এস কে আরিফুল ইসলামের সমান। এসব প্রকৌশলী পিএসসির পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ পাননি।
চট্টগ্রাম বিভাগের গরুত্বপূর্ণ উপজেলা ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ-প্রকল্পের মত সরকারের অতি-গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে- সরকারী নীতিমালা না মেনে কেন এসব অপেক্ষাকৃত অনভিজ্ঞ প্রকৌশলীদের নাম প্রস্তাব করা হয়- তা অনুসন্ধান করা প্রয়োজন।
বর্তমান সরকারের সাবেক সংসদ সদস্য ও সরকারী প্রতিষ্ঠান কমিটির সভাপতি আ স ম ফিরোজ-উক্ত প্রকল্পের-প্রকল্প পরিচালক করতে তার দপ্তরের ডিও নং-সভাপতি/ স. প্র. ক/৪৮২ তাং- ০৮-১০-২০২৩ ইং তারিখে উক্ত প্রকল্পের-প্রকল্প পরিচালক করতে প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমীন (আইডি নং-১৯৭১০৪০২০১) এর নাম প্রস্তাব করেছিলেন। উক্ত পত্রটি গত ১৮ অক্টোবর এলজিইডি-প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তরে দাখিল করা হয়। সাবেক ঐ সংসদ সদস্য আ স ম ফিরোজ কর্তৃক প্রস্তাবিত প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমীন সর্ম্পকে অনুসন্ধান করে জানা যায়- তিনি পিএসসির মেধা তালিকা অনুযায়ী ১৯৯৫ সালের ১৯ এপ্রিল সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে যোগদান করেন। এ ধরনের একজন সিনিয়র প্রকৌশলীর নাম কেন বাদ দেয়া হলো-তার সঠিক উত্তর দিতে পারেনি- এল জি ই ডি এর প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আলি আখতার হোসেন। তবে তিনি এই প্রতিনিধিকে বলেন- ‘‘ প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমীনকে অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে প্রকল্প পরিচালক-করার পরিকল্পনা রয়েছে।
প্রকল্প পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকারের সুনিদৃষ্ট নীতিমালার গেজেট রয়েছে। সরকারের ২০১৭ সালের ১০ আগষ্ট প্রকাশিত ৩২ নং গেজেটে প্রকল্প পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে যে নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে তা এল জি ই ডি-কর্তৃক কোন ভাবেই মানা হচ্ছে না। ফলে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নে সীমাহীন দূর্নীতি পরিলক্ষিত হচ্ছে।
চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের মত অনেক প্রকল্পে-প্রকল্প পরিচালক পদে বার বার তদবীরবাজরা নিজেদের ঠাঁই করে নিচ্ছে। এর ফলে সুযোগ পাচ্ছেনা অপেক্ষাকৃত জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলী মোঃ রুহুল আমীন অথবা প্রকৌশলী মোঃ দেলোয়ার হোসেন মজুমদার এর প্রকৌশলীরা।
পর্যবেক্ষক মহল-প্রকল্প পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে-চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পে প্রকল্প-পরিচালক নিয়োগে সরকারের নীতিমাল মেনে পরবর্তী ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব এর সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

 

আরও খবর

Sponsered content

আরও খবর: চট্টগ্রাম বিভাগ

স্থানীয় সরকার সচিব- এর দৃষ্টি আকর্ষন-২ || চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালী করণ প্রকল্পে- সরকারী নীতিমালা মেনে অপেক্ষাকৃত-জ্যেষ্ঠ- প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ করা হবে কি?

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব এর দৃষ্টি আকর্ষণ : চট্টগ্রাম বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়ক প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক-এর নাম প্রস্তাবে ব্যাপক অনিয়ম

চট্টগ্রামে কোল্ড স্টোরেজে সিলিন্ডার বিস্ফোরণের পর আগুন, আহত ৪

সোনাকানিয়া ইউনিয়ানে ইফতার সামগ্রী বিতরন

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম এর নিজস্ব অর্থায়নে সাতকানিয়া ইউনিয়ন ইফতার সামগ্রী বিতরণ

‘আগে ডাল-ভাতের আন্দোলন হতো এখন মাছ-মাংসের দাম কমানোর দাবি তোলে’