সুস্থ থাকতে কিভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াবেন?

গ্রীষ্মের দাবদাহ থেকে স্বস্তি দেয় বর্ষা। তবে বর্ষার সময়ই রোগবালাইয়ের সংখ্যা বেড়ে যায়। এই সময় সংক্রমণের আশঙ্কাও অনেক বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে কমে যায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। ফলে সর্দি, কাশি, ফ্লু ছাড়াও ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়ার মতো মশাবাহিত রোগ এবং কলেরা, টাইফয়েডের মতো সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়। এ জন্য দরকার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো। তবে শুধু বর্ষাকালে না, সারা বছরই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো দরকার। এ জন্য এমন কিছু খাবার খেতে হবে, যা পুষ্টির সঙ্গে আপনার শরীরকে স্বাভাবিকভাবে উজ্জীবিত করে তুলতে পারে।

১. সাইট্রাস ও মৌসুমি ফল : সাইট্রাস ফল হলো ভিটামিন সি এবং ফাইবারের মতো পুষ্টির এনার্জিতে ভরপুর। এই ধরনের ফল শরীরে শক্তি জোগাতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে সহায়তা করে। তাই অবশ্যই আপেল, পেয়ারা, কলা, বেদানা, পেপে, কিউই, আমলকী, কমলালেবু, লিচু, নাশপাতি, বেরি ইত্যাদি মৌসুমি ফল রোজকার ডায়েটে রাখুন। এসব ফলগুলোতে উচ্চ মাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট রয়েছে, যা ব্লাড প্রেসার কমাতে সাহায্য করে।

২. বিট : বর্ষায় বাতাসের আর্দ্রতা বেশি থাকায় আমাদের হজমক্ষমতা দুর্বল হয়ে যায়। বেশির ভাগ মানুষই এই সময় হজমের সমস্যায় ভোগেন। সে ক্ষেত্রে নিয়মিত বিট খেলে হজমপ্রক্রিয়া ভালো হবে। একই সঙ্গে বিট ওজন কমাতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এ ছাড়া বর্ষায় চুল পড়ার সমস্যা থাকলেও খাদ্যতালিকায় বিট যুক্ত করুন।

৩. ভুট্টা : কম ক্যালোরিযুক্ত এবং ফাইবারে ভরপুর ভুট্টা হলো বর্ষায় একটি খুব ভালো স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস। এটিতে লুটেইন এবং দুটি ফাইটোকেমিক্যাল রয়েছে, যা দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে। পাশাপাশি ভুট্টায় অদ্রবণীয় ফাইবারগুলো আমাদের অন্ত্রে ভালো ব্যাকটেরিয়া বাড়ায়, যার ফলে হজমে সহায়তা হয়। নিজের ইচ্ছামতো আপনি ভুট্টা খেতে পারেন।

৪. করলা : কোষ্ঠকাঠিন্য, আলসার এবং ম্যালেরিয়ার মতো রোগকে উপশম করার জন্য রোজকার ডায়েটে করলা রাখুন, কারণ করলায় প্রদাহবিরোধী গুণ রয়েছে। করলা শরীরের ব্লাড সুগারের মাত্রা কম করে বলে ডায়াবেটিস রোগীরাও নির্দ্বিধায় করলা খেতে পারেন।

৫. ডাবের পানি : স্বাস্থ্যকর থাকতে এবং ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ রোধ করার অন্যতম উপায় হলো শরীরকে হাইড্রেটেড রাখা। সারা দিনে পানি খাওয়ার পরিমাণ বাড়ানোর সঙ্গেই দিনে একবার ডাবের পানি খেলে তা শরীর থেকে টক্সিন বের করতে সাহায্য করবে। কারণ ডাবের পানি হলো ইলেকট্রোলাইটের খুব ভালো উৎস। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ডাবের পানি। এ ছাড়া হার্ট ভালো রাখে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.