সুইজারল্যান্ডে এমপি হয়ে ইতিহাসের পাতায় বাংলাদেশি সুলতানা

প্রবাসী বাংলাদেশি সুলতানা খান সুইজারল্যান্ডে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। জুরিখ জোন থেকে সরাসরি ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। গতকাল মঙ্গলবার এ ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সর্বোচ্চ ভোটে নির্বাচিতদের মধ্যে তৃতীয় স্থান অর্জন করেন সুলতানা। প্রথম কোনও বাংলাদেশি হিসেবে সুইজারল্যান্ডে এমপি নির্বাচিত হয়ে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখালেন সুলতানা।

সুইজারল্যান্ডের মূল ধারার বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন সুলতানা। বিভিন্ন সামাজিক ও পরিবেশ বিষয়ক সংগঠনের কর্মী হিসেবেও কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। সুইজারল্যান্ড এবং ইউরোপে বাংলাদেশের শিল্প ও সাহিত্য চর্চার জন্য ‘বাংলায় স্কুলের’ অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সুলতানা। পরিচালনা পর্ষদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বও পালন করছেন তিনি।

নির্বাচনী জয়ের পর সুলতানা বলেন, আমি প্রথমেই ধন্যবাদ দিতে চাই এখানে বসবাসকারী প্রবাসী বাংলাদেশিদের, যারা আমার ওপর আস্থা রেখেছেন। এছাড়া সুইজারল্যান্ডের জনগণ যারা জয়ী হওয়ার জন্য আমাকে ভোট দিয়েছেন। আমার এই অর্জন তাদের সবার জন্য। সংসদের বিশেষ অধিবেশনে সাংসদ হিসেবে নারী অধিকার রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা রাখতে চান সুলতানা।

তিনি বলেন, নারী অধিকারের বিষয়ে কথা বলার পাশাপাশি আমার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা থাকবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের স্বার্থ রক্ষা করা। আর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষা করা। আমি সুইজারল্যান্ডে একটি স্থায়ী শহীদ মিনার ও স্মৃতি স্থাপনা স্থাপনের প্রস্তাব রাখবো। যাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ এখানে এলে বাংলাদেশের গৌরবের ইতিহাস জানতে পারে।

সুলতানার এমন অর্জনে সুইজারল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশিসহ স্থানীয়রা অভিবাদন জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত, রাজবাড়ীর মেয়ে সুলতানার জন্ম ঢাকার মিরপুরে। তার বাবার নাম এসএম রুস্তম আলী। আর মায়ের নাম মাতা রাজিয়া সুলতানা। ৫ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট। সুলতানা ঢাকা সিটি কলেজ থেকে স্নাতক এবং মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০০৪ সাল থেকে স্বামী প্রবাসী সাংবাদিক, সংগঠক এবং ব্যবসায়ী বাকি উল্লাহ খান এবং দুই ছেলেসহ সুইজারল্যান্ডের জুরিখ শহরে বসবাস করছেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.