সাফল্যের কৃতিত্ব পুরো দলকে দিলেন সাকিব

সিরিজের আগে অস্ট্রেলিয়াই ছিল ফেভারিট দল। অতীত রেকর্ডও সে কথা বলে। অথচ মূল লড়াইয়ে চমক দেখাল বাংলাদেশ। পাঁচ ম্যাচের সিরিজের প্রতিটিতেই দাপট দেখিয়েছে লাল-সবুজের দল। চার ম্যাচে জিতে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ শেষ করেছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথমবার দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলে প্রথমটিতেই বাজিমাত করল বাংলাদেশ।

ব্যাটে-বলের নৈপুর্ণে ম্যাচ ও সিরিজে সেরা হয়েছেন সাকিব আল হাসান। তবে অস্ট্রেলিয়ার মতো দলের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের জন্য পুরো দলকেই কৃতিত্ব দিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। জানালেন, সতীর্থদের অবদান ছাড়া এই অর্জন সম্ভব ছিল না।

ম্যাচ শেষে সাকিব বলেন, ‘আমি এখনো খেলাটি উপভোগ করছি, এটাই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমার সতীর্থদের অনেক ধন্যবাদ, তাদের অবদান ছাড়া এই অর্জন সম্ভব হতো না। আমি মনে করি, জিম্বাবুয়ে এবং অস্ট্রেলিয়া—এই দুটি সিরিজে আমরা সত্যিই ভালো ক্রিকেট খেলেছি।’

একই সঙ্গে উইকেটের প্রসঙ্গও আনলেন সাকিব, ‘অবশ্যই উইকেটটা কঠিন ছিল। কিন্তু আমরা স্নায়ুচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। সব মিলিয়ে দলের প্রচেষ্টায় এই অর্জন। আপনি যদি শেষ ম্যাচের দিকে তাকান, আমরা মাত্র ১০৪ রান করেছি। খেলাটি মূলত ওইখানেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। অথচ আমরা ম্যাচটি ১৯ ওভার পর্যন্ত নিতে পেরেছি।’

দলের উন্নতি নিয়ে সাকিব আরও বলেন, ‘আমরা আমাদের সব বিভাগে উন্নতি করার চেষ্টা করছি। আমাদের পেসাররাও ভালো করছে। মুস্তাফিজ, শরিফুলদের দিকে তাকান। তারা আমাদের (স্পিনারদের) কাজকে সহজ করে তুলেছে। আমরা আমাদের অংশেও ভালো অবদান রাখছি।’

আজ সোমবার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৬০ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে মাত্র ৬২ রানেই গুটিয়ে গেছে অস্ট্রেলিয়া। টি-টোয়েন্টি এটাই তাদের সর্বনিন্ম স্কোর। টি-টোয়েন্টিতে এর আগের সর্বনিন্ম ছিল ৭৯ রান। সেটা ছিল ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। ১৬ বছর পর এবার বাংলাদেশের মাটিতে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের ইতিহাসের সর্বনিন্ম দলীয় স্কোরের লজ্জা পেল অসিরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.