যে কারণে বাড়ছে হজের খরচ

বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা শর্তসাপেক্ষে ও সীমিত পরিসরে সৌদি আরবে ওমরাহ হজ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় সাত মাস বন্ধ থাকার পর অক্টোবর থেকে পবিত্র ওমরাহ পালনের অনুমতি দিয়েছে সৌদি আরব সরকার।

প্রথম ধাপে সীমিত পরিসরে শর্ত সাপেক্ষে সে দেশের নাগরিক ও সেখানে অবস্থানরত প্রবাসীদের জন্য অনুমতি দিলেও এখন সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন দেশ থেকে মুসুল্লিরা ওমরাহ পালনের উদ্দেশে সৌদি আরবে গেলেও বাংলাদেশ মাত্র প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তবে এবার ওমরাহ হজ পালনে খরচ বেড়ে যাবে।

হজ এজেন্সি সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বিমান ভাড়াসহ বিভিন্ন শর্তের কারণে এবার ওমরাহ হজ পালনে খরচ বাড়বে। অন্যদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় নানা বিধি-নিষেধের কারণে কাবা শরিফে একবার তিন ঘণ্টার জন্য প্রবেশের সুযোগ পাবেন।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে হজের কার্যক্রম শুরু করতে বৈধ এজেন্সির তালিকা তৈরির জন্য আগামী ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে আগ্রহী এজেন্সিগুলোকে প্রয়োজনীয় নিয়ম মেনে আবেদন করতে বলা হয়েছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মন্ত্রণালয়ের তালিকা প্রকাশের পর আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এজেন্সিগুলো ওমরাহ কার্যক্রম শুরু করতে পারবেন।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম গণমাধ্যমকে জানান, ধর্ম মন্ত্রণালয় তালিকা প্রকাশ করার পরই এজেন্সিগুলো ওমরাহ পালনের প্রস্তুতি নেবে। তবে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে এবার ওমরাহ পালনের জন্য সৌদি আরবে গিয়ে প্রথম তিনদিন কোয়ারেনটাইনে থাকা বাধ্যতামূলক।

তিনি জানান, প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে মুসুল্লিরা সেখানে পৌঁছেই ওমরাহ পালন করতে পারেন। মক্কায় যতদিন অবস্থান করেন ততদিনই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কাবা শরিফে গিয়ে পড়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এবার বিধি-নিষেধের কারণে সে নিয়ম পালন করতে পারবেন না।

আরও পড়ুন
Loading...