মোদির মন্ত্রিসভায় নতুন সমীকরণ, শপথ নিলেন ৪৩ মন্ত্রী

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা এবং রাজনীতির সমীকরণ মিলিয়েই মন্ত্রিসভায় রদবদল করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সব নাটকীয়তার অবসান ঘটিয়ে ৪৩ জন মন্ত্রী শপথ নিয়েছেন। এদের মধ্যে নতুন মুখ ৩৬ জন। আর বাকি সাত জন প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণমন্ত্রী পদোন্নতি পেয়েছেন।

বুধবার (০৭ জুলাই) সন্ধ্যায় ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে নতুন মন্ত্রীদের শপথ পড়ানো হয়। করোনা মহামারির কারণে ৪৩ জন মন্ত্রী শপথ বাক্য পাঠ করলেও জাকজমকপূর্ণ আয়োজন ছিল না। শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ উপস্থিত ছিলেন।

দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাগ্রহণের পর প্রথমবার মন্ত্রিসভা সংস্কারের উদ্যোগ নেন নরেন্দ্র মোদি। রদবদলকে কেন্দ্র করে এর আগে স্বাস্থ্য-শিক্ষাসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ১২ জন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন।

নতুন মন্ত্রীর তালিকায় রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের ৪ সাংসদ। এরা হলেন সুভাষ সরকার, নিশীথ প্রামাণিক, জন বার্লা ও শান্তনু ঠাকুর।

এছাড়া শপথ নেয়া অন্য মন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা হলেন- নারায়ণ রানে, সর্বানন্দ সোনোওয়াল, ডা. বীরেন্দ্র কুমার, জয়শ্রী দত্ত এম সিন্দিয়া, রামচন্দ্র প্রসাদ সিং, অশ্বিনী বিশ্বনাও, পশুপতি পরস, কিরেন রিজিজু, রাজকুমার সিং, হারদ্বীপ সিং পুরি, মানসুখ মান্দাভিয়া, ভুপেন্দ্র যাদব, পুরুষোত্তম রুপালা, জি. কিশান রেড্ডি, আওরং শিং ঠাকুর, পঙ্কজ চৌধুরী, অনুপ্রিয়া সিং প্যাটেল, ডা. সত্যপাল সিং বাগাল, রাজিব চন্দ্র শেখর, শুভ্রা কারান্দলাজি, ভানু প্রতাপ সিং ভর্মা, দর্শনা ভিকরম জার্ডোশ, মিনাক্ষী লিখি, অন্নপূর্ণা দেবি, এ. নারায়ণ স্বামী, কুশাল কিশোর, অজয় ভাট, বি. এল. ভার্মা, অজয় কুমার, চৌহান দেবুসিং, কাপিল মেরসাওয়ার পাতিল, প্রতিমা ভৌমিক, ডা. সুবাস সরকার, ডা. ভগবতী কিশোর কারাদ, ডা. রাজকুমার রঞ্জন সিং, ডা. ভারতি প্রবীণ পাবর, বিশ্বওয়ার টিডু, শান্তানু ঠাকুর, ডা. মুঞ্জাপারা মাহেন্দ্রভাই, ডা. এল. মুরুগান।

নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভায় সাত জন প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণ মন্ত্রী বানানো হয়েছে। গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন রাজ্য বিজেপি’র সভাপতি ছিলেন তার বিশ্বস্ত পুরুষোত্তম রূপালা। প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। প্রাক্তন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব আর কে সিংহ প্রশাসনিক দক্ষতার কারণেই প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণমন্ত্রিত্বে পদোন্নতি হয়েছে বলে বিজেপি’র দলীয় সূত্রের খবর। তবে আরেক প্রাক্তন আমলা হরদীপ সিংহ পুরীর পূর্ণমন্ত্রী হয়েছেন।

মন্ত্রিসভায় রদবদলে ৪৩ জনের ভাগ্য বদল হলেও অনেকের ভাগ্যে দুর্গতি এসেছে। বিহার থেকে বাদ পড়েছেন রবিশঙ্কর প্রসাদ, অশ্বিনী চৌবের মতো প্রবীণ বিজেপি নেতারা।

কোচবিহার থেকে শপথ নিয়েছেন বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক। শপথ নিয়েছেন আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লা। প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। সূত্র: এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা

মণিপুর থেকে রয়েছেন বিজেপি সাংসদ রাজকুমার রঞ্জন সিংহ। এছাড়া শপথ নিয়েছেন পশ্চিম ত্রিপুরার বিজেপি সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক। তিনি ত্রিপুরা থেকে প্রথমবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় জায়গা পেলেন।

মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন পঙ্কজ চৌধুরী। উত্তরপ্রদেশ থেকে ছয়বারের সাংসদ হলেও প্রথমবার মন্ত্রিসভায় জায়গা পেলেন পঙ্কজ। অর্থ প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণ মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন অনুরাগ ঠাকুর।

স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী থেকে পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন সেকেন্দ্রাবাদ থেকে প্রথমবার সাংসদ হওয়া জি কিষাণ রেড্ডি। শপথ নিলেন পুরুষোত্তম রুপালা। গুজরাট থেকে দু’বারের রাজ্যসভার সাংসদ পুরুষোত্তম রুপালা। মোদি মন্ত্রিসভায় কৃষি প্রতিমন্ত্রী ছিলেন পুরুষোত্তম।

নরেন্দ্র মোদির নতুন মন্ত্রিসভায় ১২ জন বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর নেতা ঠাঁই পেয়েছেন। বিহার, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ, কর্ণাটক, রাজস্থান ও তামিলনাড়ু থেকে মন্ত্রী হয়েছেন। এছাড়া ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের মধ্য থেকে তিন জন মন্ত্রী হয়েছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.