মাইগ্রেনের ব্যথা কমাবে কানের দুল!

নারীদের সাজের অন্যতম একটি অনুষঙ্গ হচ্ছে কানের দুল। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে নানান ডিজাইনের কানের দুল পরেন নারীরা। এতে তাদের সৌন্দর্য আরো বৃদ্ধি পায়। তবে নারীরা কেবল কানের লতিতেই শুধু দুল পরে এমন নয়। অনেকেই কানের একাধিক জায়গা ফুঁড়িয়ে দুল পরতে ভালোবাসেন। বলা চলে, এটা এখন ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। কিন্তু কানের দুল শুধুমাত্র নারীরাই পরেন তা নয়, অনেক ছেলেও কানে দুল পরে থাকেন। এটাকে ‘পিয়ারসিং’ বলা হয়।

জানলে অবাক হবেন যে, কানে দুল পরা শুধু স্টাইল নয়, এর কিছু উপকারিতাও রয়েছে। কানের নির্দিষ্ট স্থানে দুল পরা বা পিয়ারসিং করালে মাইগ্রেন থেকে মুক্তি মেলে বলে দাবি করেছেন গবেষকরা। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশেষজ্ঞরা দাবি করছেন, কান ফোটানো শুধু স্টাইল স্টেটমেন্ট নয়, এর উপকারিতাও আছে। কানের একটা নির্দিষ্ট জায়গায় পিয়ারসিং করালে মাইগ্রেনের ব্যথা কমতে পারে।

কোথায় করতে হবে পিয়ারসিং?

গবেষকদের দাবি, কানের তিনটি অংশ, সেগুলো হলো- বহিঃকর্ণ, মধ্যকর্ণ ও অন্তঃকর্ণ। এর মধ্যে পিয়ারসিং করাতে হবে বহিঃকর্ণে। এখন কানের বাইরে দিকটাতে অনেকগুলো ভাঁজ আছে। একেবারে মাথার দিকে নরম অস্থি বা তরুণাস্থি দিয়ে তৈরি যে অংশ তাকে বলে হেলিক্স।

এ হেলিক্সের দুটো ভাগ, অ্যান্টিহেলিক্স অর্থাৎ পিনা বা কর্ণছত্রের ঠিক ভেতরের ভাঁজ এবং আরো একটা অংশ আছে যেটা ইয়ার চ্যানেলের ঠিক উপরে। কানের যে অংশটা সোজা ভেতরে চলে যাচ্ছে, তার ঠিক মাথার উপরে। তরুণাস্থি দিয়ে তৈরি হেলিক্স যাকে বলা হয় ক্রাক্স অব হেলিক্স। এ অংশ মস্তিষ্কে গিয়ে মিশেছে।

গবেষকরা বলছেন, ঠিক এখানেই যদি ফুটো করা যায়, তাহলে মাথাব্যথা কমে যাওয়ার একটা বন্দোবস্ত হতে পারে। একে বলে ডাথ পিয়ারসিং। যদিও গবেষকদের এ দাবির যথাযোগ্য প্রমাণ নেই, তবে কিছু ক্ষেত্রে মাইগ্রেনের রোগীদের উপরে এর প্রয়োগ করে উপকার মিলেছে বলেই দাবি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.