ভোক্তা-কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় চাল আমদানির সিদ্ধান্ত: খাদ্যমন্ত্রী

ভোক্তা ও কৃষকের স্বার্থ রক্ষায় সরকার চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার।

তিনি বলেন, এ মুহূর্তে সরকারের চালের মজুত ১৭ লাখ মেট্রিক টন। চলমান বোরো সংগ্রহ অভিযানে সাড়ে আট লাখ টন চাল সংগ্রহ হয়েছে। চাল সংগ্রহের সময় আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যেই শতভাগ চাল সংগ্রহ হয়ে যাবে।

এ সময় খাদ্য গুদামে মানসম্মত চাল সংগ্রহের ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বলেন, চালের মানের সঙ্গে আপস করা যাবে না।

বৃহস্পতিবার বগুড়ার আদমদীঘির শান্তাহার সেন্ট্রাল স্টোরেজ ডিপো (সিএসডি) পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের কাছে খাদ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেয়ার আগে দেশে বেসরকারিভাবে চাল আমদানি হতো শূন্য শতাংশ কর আরোপে এবং যে কেউ আমদানি করতে পারতো। এর ফলে বাজারে আমদানিকৃত চালের সরবরাহ বেশি ছিল। ফলে দামও কমে গিয়েছিল। এটার ফলে কৃষক কম দামে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিল। প্রান্তিক কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ধান চাষে আগ্রহ হারিয়ে অন্য ফসলের চাষ শুরু করে।

মন্ত্রী আরো বলেন, মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণের পর কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেটি নিশ্চিত করতে এবং আমদানি নিরুৎসাহিত করতে চাল আমদানিতে ৬২.৫ শতাংশ কর আরোপ করা হয়েছিল। মূল উদ্দেশ্য ছিল, কৃষককে ধান চাষে আবার আগ্রহী করে তোলা এবং স্থানীয় সংগ্রহের মাধ্যমে খাদ্য মজুত বৃদ্ধি করা। বর্তমান সরকার এখন কৃষকের কাছ থেকে যৌক্তিক দামে ধান সংগ্রহ করায় কৃষক উপকৃত হচ্ছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.