বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের কভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কভিড-১৯ ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সেনা সদস্যদেরকেও ভ্যাকসিন প্রদান করা শুরু হয় এবং বিভিন্ন দেশে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের ভ্যাকসিন প্রদানের বিষয়ে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, সম্প্রতি সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত সেনা সদস্যদের ভ্যাকসিন প্রদানের গুরুত্ব এবং জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে মিশন এলাকায় বাংলাদেশ শান্তিরক্ষীদের ভ্যাকসিন প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন। একইসাথে দেশ থেকে নতুন শান্তিরক্ষী মোতায়েনের পূর্বে সেনা সদস্যদের ভ্যাকসিন প্রদান করে মোতায়েন করা হবে বলে আশ্বস প্রদান করেন।

শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশসমূহের মধ্যে বাংলাদেশই সর্বপ্রথম মার্চ ২০২১ থেকে ডিআর কঙ্গোতে নিয়োজিত কন্টিজেন্টসমূহের প্রতিস্থাপনকালে সেনাসদস্যদের ভ্যাকসিন প্রদান করে মিশন এলাকায় মোতায়েন করে আসছে। অতি সম্প্রতি মিশন এলাকাতেও জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের বাংলাদেশে ব্যবহৃত অনুরূপ ভ্যাকসিন (AstraZeneca) প্রদান করা শুরু হয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে জাতিসংঘের অধিনে ৮টি মিশনে ৫৩০৮ জন সেনাসদস্যসহ সর্বমোট ৬৮৮৫ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী মোতায়েন রয়েছে।

আরও পড়ুন
Loading...