ফেরি স্বল্পতায় বিকল্প রুট ব্যবহারের পরামর্শ বিআইডব্লিউটিসি’র

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌ-রুটে ফেরি স্বল্পতার জন্য বিকল্প হিসেবে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও চাঁদপুর-শরিয়তপুর ফেরি রুট ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)।

শুক্রবার রাতে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নির্মাণাধীন পদ্মাসেতুর পিলারে সম্প্রতি কয়েক দফা ফেরি ধাক্কা দেয়ার পর প্রচণ্ড স্রোতের কারণে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌ-রুটে রো রো ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এর আগে, গত ২৩ জুলাই সকালে প্রথম মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে পদ্মাসেতুর ১৭ নম্বর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লাগে রো রো ফেরি শাহজালালের। এতে ফেরির ২০ যাত্রী আহত হন।

এরপর ৯ আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বাংলাবাজার থেকে ছেড়ে আসা ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর সেতুর ১০ নম্বর পিলারে ধাক্কা খায়।

সবশেষ গতকাল শুক্রবার সকাল পৌনে ৭টার দিকে বাংলাবাজার ঘাট থেকে শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে কাকলি নামে একটি ফেরি পদ্মাসেতুর ১০ নম্বর পিলারে ধাক্কা দেয়। প্রতিটি দুর্ঘটনায় সাময়িক বরখাস্ত করা হয় ফেরির মাস্টার ও সুকানিকে।

পদ্মাসেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কার পর মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাট, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুট এবং শরীয়তপুরের মাঝিরকান্দিঘাট পরিদর্শন করেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পদ্মাসেতু এখন বাস্তবতা। এ সেতুতে হালকা আঘাত লাগলেও আমরা এটাকে হালকাভাবে দেখছি না। দায়িত্বে উদাসীনতার কারণগুলো খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, পদ্মাসেতু পুরোপুরি চালু হলে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটের বাঁধ রক্ষায় শরীয়তপুরের জাজিরায় মাঝির ঘাটে ফেরিঘাট স্থানান্তরের বিষয়টি পরিকল্পনায় রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.