পর্দা নামলো টোকিও অলিম্পিকের

পর্দা নামলো টোকিও অলিম্পিকের। বৈশ্বিক এ ইভেন্টের ৩২তম আসরের ১৭ দিনের সফল মহাযজ্ঞ শেষ হলো রোববার। পরবর্তী আসর বসবে ২০২৪ সালে ফ্রান্সের প্যারিসে। সমাপনী অনুষ্ঠানে হস্তান্তর হয়েছে পতাকার। টোকিওর মেয়র ইউরিকো কোইকে পতাকা তুলে দেন আইওসি সভাপতি টমাস বাখের হাতে। এরপর আইওসি সভাপতি সেটি তুলে দিয়েছেন প্যারিসের মেয়র আন হিদালগুর হাতে।

আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে সমাপনী বক্তব্যে আইওসি প্রেসিডেন্ট বলেছেন, খেলাধুলার ঐক্যবদ্ধ শক্তি দিয়ে আপনারা আমাদের অনু্প্রাণিত করেছেন। করোনা পরিস্থিতির এ সময়ে আপনারা বিশ্বকে বড় উপহার দিয়েছেন। মহামারির কারণে আপনাদের (টোকিওর আয়োজক) যে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়েছিল, সে কারণে এটি আরো অসাধারণ। আপনাদের ধন্যবাদ। আমি গেমসের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘোষণা করছি।

এর আগে, সমাপনী অনুষ্ঠানের শুরুতে বড় পর্দায় এবারের গেমসের নানা দিক তুলে ধরা হয়। এবার স্বর্ণপদকের নিষ্পত্তি হওয়ার কথা ছিল ৩৩৯টি। কিন্তু অলিম্পিকের ১১৩ বছরের ইতিহাসে যা হয়নি এবার তাই হয়েছে। হাই জাম্পে কাতারের মুতাজ ইসা বারশিম ও ইতালির জিয়ানমার্কো তামবেরি স্বর্ণপদক ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। ভাগাভাগি করায় পদকসংখ্যা বেড়েছে একটি।

বিশাল এ মহাযজ্ঞ শেষে যুক্তরাষ্ট্র পদক তালিকায় সবার ওপরে থেকে অলিম্পিক শেষে করেছে। রিও ডি জেনেরিইওর পর টোকিওতেও তাদের আধিপত্য বজায় থাকলো। ৩৯টি সোনা, ৪১টি রূপা ও ৩৩টি ব্রোঞ্জসহ ১১৩টি পদক তাদের। একটি স্বর্ণপদক কম নিয়ে চীন দ্বিতীয়। এবার দেশটি ৩৮টি সোনা ৩২টি রূপা ও ১৮টি ব্রোঞ্জসহ ৮৮টি পদক জিতেছে। ২৭টি সোনা, ১৪টি রূপা, ১৭টি ব্রোঞ্জসহ ৫৮টি পদক নিয়ে আয়োজক জাপান তৃতীয়। এছাড়া অংশগ্রহণকারী ৮৬টি দেশ পেয়েছে পদক। বাংলাদেশও আগের মতো এ গেমসে অংশ নিয়েছে। আর্চারিতে রোমান ছাড়া বাকি সবাই ওয়াইল্ড কার্ড নিয়ে অংশ নিলেও বেশিদূর যেতে পারেননি কেউই।

Leave A Reply

Your email address will not be published.