পটুয়াখালীর জোড়া লাগা সেই নবজাতক ঢাকায়

জোড়া লাগা অবস্থায় জন্ম নেয়া সেই যমজ নবজাতককে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। পটুয়াখালী পৌর শহরের ফোকাস ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক মেহেদী হাসান শিবলির সহযোগিতায় ওই নবজাতককে ঢাকায় নিতে সক্ষম হয়েছে পরিবারটি। এর আগে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নবজাতককে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিলেও আর্থিক সংকটের কারণে ব্যর্থ ছিল পরিবারটি। নবজাতককে বাঁচাতে হলে আর্থিক সহায়তার জন্য দাতাগোষ্ঠীর সহায়তা কামনা করেছে এ পরিবারটি।

পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. জাকিয়া সুলতানা জানান, কনজয়েন্ট বেবি তাও আবার প্রিম্যাচিওর, মাত্র ৩২ সপ্তাহে এই যমজ বাচ্চা প্রসব করানো হয়েছে। প্রসূতি রেখার পেটে বেড়ে ওঠা যমজ শিশু দুটি জোড়া এবং তাদের পাকস্থলীও জোড়া লাগানো এবং পেটের উপরি ভাগ থেকে মাথা পর্যন্ত আলাদা। এছাড়াও তাদের লিভার দুইটা, লান্স দুইটা, হার্ট দুইটা,পায়খানার রাস্তা দুইটার একটি ছিদ্র নাই। প্রস্রাবের রাস্তা একটা, কিন্তু পায়খানার রাস্তা না থাকায় পায়খানা করতে পারছে না। যে চিকিৎসা পটুয়াখালীতে অসম্ভব। তাই প্রথম থেকেই ঢাকায় নিতে বলেছি।

পটুয়াখালী সদর উপজেলার লোহালিয়ার বাসিন্দা বশির শিকদারের স্ত্রী মোসা. রেখা বেগম এই শিশুটির জন্ম দিয়েছেন। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ডা. সেলিনা আক্তার সিজারিয়ান অপারেশন করে সন্তান প্রসব করাতে সক্ষম হন। এরপর নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে তাকে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

আরও পড়ুন
Loading...