নিজ ঘরে পড়েছিল স্বামী-স্ত্রীর নিথর দেহ

নেত্রকোনার মদন উপজেলার তিয়শ্রী ইউনিয়নের বালালী গ্রামে নিজ ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়। নিহতরা হলেন- উপজেলার আলমশ্রী গ্রামের শামছু মীরের ৫৫ বছর বয়সী ছেলে নান্দু মীর ও তার স্ত্রী হিমা আক্তার। তিনি বালালী গ্রামের আব্দুল মন্নাফের মেয়ে।

জানা গেছে, প্রায় ১০ বছর আগে হিমাকে বিয়ে করেন নান্দু মীর। বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়ির পাশে বাড়ি বানিয়ে থাকতেন তিনি। তাদের অপূর্ব নামে আট বছর বয়সী এক ছেলে ও বাবনী আক্তার নামে পাঁচ বছরের এক মেয়ে রয়েছে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে মদন থানার ওসি মো. ফেরদৌস আলম জানান, সোমবার রাতে খাবার খেয়ে সন্তানদের নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন স্বামী-স্ত্রী। সকাল সাড়ে ৬টার দিকে নান্দু মীরকে ডাকতে যান এক প্রতিবেশী। কিন্তু কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীদের জানান। এ সময় প্রতিবেশীদের ডাকে ঘুম থেকে উঠে দরজা খুলে দেন নান্দু মীরের ছেলে অপূর্ব। দরজা খুলতেই নান্দু মীর ও তার স্ত্রী হিমার মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেন প্রতিবেশীরা। পরে সকাল পৌনে ১০টার দিকে ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ওসি আরো জানান, রাতের কোনো এক সময়ে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘরের ভেতরে স্ত্রী হিমার রক্তাক্ত মরদেহ পড়েছিল আর ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলছিল স্বামী নান্দু মীর। মরদেহ দুটি নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রীকে হত্যার পর নান্দু মীর নিজে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.