তিন সপ্তাহে মূলধন কমেছে ১৮ হাজার কোটি

গেল সপ্তাহে দেশের পুঁজিবাজার কিছুটা মন্দার মধ্যে দিয়ে পার করেছে। এতে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন কমেছে ৬ হাজার কোটি টাকারও বেশি। বড় অঙ্কের মূলধন হারানোর পাশপাশি কমেছে সবকটি মূল্য সূচক। আগের দুই সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমে ১২ হাজার কোটি টাকা। ফলে টানা তিন সপ্তাহের পতনে ১৮ হাজার কোটি টাকার ওপরে মূলধন হারালো ডিএসই।

বাজার পর্যালোচনা করে দেখা যায়, সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস লেনদেন শুরুর আগে ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল ৫ লাখ ৬৯ হাজার ৮৫১ কোটি ২৪ লাখ ৬১ হাজার টাকা। আর সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস লেনদেন শেষে বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৪৯৮ কোটি ৬০ লাখ ৪২ হাজার টাকায়। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে বিনিয়োগকারীরা ছয় হাজার ৩৫২ কোটি ৬৪ লাখ ১৭ হাজার টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে।

বিদায়ী সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সাত হাজার ৫৫০ কোটি ১৩ লাখ ২৫ হাজার ৬৫৩ টাকার লেনদেন হয়েছে। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ছয় হাজার ৪৩ কোটি ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৯৩৫ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইতে লেনদেন এক হাজার ৫০৭ কোটি ৯ লাখ ৯১ হাজার ৭১৮ টাকা বা ২৫ শতাংশ বেড়েছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৩ পয়েন্ট বা ০.২০ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে সাত হাজার ৬২ পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৩৮ পয়েন্ট বা ২.৫৫ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৬০ পয়েন্ট বা ২.২৪ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৪৭৯ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৬৩৮ পয়েন্টে।

বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইতে মোট ৩৭৮টি প্রতিষ্ঠান শেয়ার ও ইউনিট লেনদেনে অংশ নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ২০৫টির বা ৫৪.২৩ শতাংশের, কমেছে ১৫৫টির বা ৪১ শতাংশের এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির বা ৪.৭৭ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিটের দাম।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বিদায়ী সপ্তাহে টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ২৫৮ কোটি ৯৭ লাখ ৮৪ হাজার ৮২২ টাকা। আর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ২২৮ কোটি ৯৮ লাখ ১২ হাজার ২৪৮ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে সিএসইতে লেনদেন ২৯ কোটি ৯৯ লাখ ৭২ হাজার ৫৭৪ টাকা বা ১৩ শতাংশ বেড়েছে।

সপ্তাহটিতে সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৬৪ পয়েন্ট বা ০.৩১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৬২৮ পয়েন্টে। সিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে সিএসসিএক্স ৪১ পয়েন্ট বা ০.৩৩ শতাংশ, সিএসই-৩০ সূচক ৩০৫ পয়েন্ট বা ২.০৬ শতাংশ, সিএসই-৫০ সূচক ২৩ পয়েন্ট বা ১.৫২ শতাংশ এবং সিএসআই ১৫ পয়েন্ট বা ১.৯৬ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২ হাজার ৩৯২ পয়েন্টে, ১৪ হাজার ৪৮৫ পয়েন্টে, ১ হাজার ৫৩৪ পয়েন্টে এবং এক হাজার ২৭৫ পয়েন্টে।

সপ্তাহজুড়ে সিএসইতে ৩৩৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেনে অংশ নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৭৪টির বা ৫১.৬৩ শতাংশের দাম বেড়েছে, ১৪৮টির বা ৪৩.৯২ শতাংশের কমেছে এবং ১৫টির বা ৪.৪৫ শতাংশের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.