ঝালকাঠির ভাসমান পেয়ারার বাজারে মন্দা

ঝালকাঠি সংবাদদাতা: ঝালকাঠির ভাসমান পেয়ারা বাজারে এবার মন্দা যাচ্ছে। করোনা অতিমারিতে দূর-দূরান্তের পাইকাররা না আসায়, বিপাকে পড়েছেন পেয়ারাসহ সবজি ও ফল চাষিরা। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন পর্যটন কেন্দ্রিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারাও। তবে জেলা প্রশাসকের আশ্বাস, করোনা পরিস্থিতিতে পেয়ারা চাষিদের জন্য প্রণোদনা আর ব্যবসায়ীদের ঋণের ব্যবস্থা করা হবে।

প্রতিবছর শ্রাবণ ও ভাদ্রমাসে ঝালকাঠি সদরের ভীমরুলি খালে বসে ভাসমান পেয়ারা বাজার। শুধু পেয়ারাই নয়, এই বাজারে ১২ মাসই নানা রকম সবজি এবং ফল বেচাকেনা হয়। ঢাকাসহ দূর-দূরান্তের পাইকারী ব্যবসায়ীরা এখান থেকে পেয়ারা কিনে সরবরাহ করেন সারাদেশে।

কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে এবার বাজারে নেই পাইকারদের আনাগোনা। আশপাশের এলাকা থেকে অল্প সংখ্যক ব্যবসায়ী এলেও, পেয়ারার ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না কৃষক। সেই সাথে ভাসমান হোটেল আর পর্যটন কেন্দ্রিক ছোট ছোট ব্যবসায় চলছে মন্দা।

ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক মো: জোহর আলী জানালেন, পেয়ারা চাষিদের প্রণোদনা ও ব্যবসায়ীদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

ঝালকাঠি সদর উপজেলায় এ বছর ৫শ’ ৩০ হেক্টর জমিতে পেয়ারার ফলন হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.