চোরাই পথে ঢুকছে মিয়ানমারের গরু

কক্সবাজারের মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে পশু আমদানি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। স্থানীয় খামারিদের কোরবানীর উপযোগী পর্যাপ্ত পশু থাকা সত্বেও ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফার লোভে মিয়ানমার থেকে গরু আনায় তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

কোরবানীর ঈদকে ঘিরে দেশের পশু খামারিরা আশায় বুক বেঁধে আছেন-ভালো দামে তারা পশু বিক্রি করবেন।

কক্সবাজারে কোরবানীর উপযোগী প্রায় পৌনে দুই লাখ পশু রয়েছে। কিন্তু মিয়ানমার সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে পশু আমদানি করায় দুঃশ্চিন্তায় রয়েছেন খামারিরা। সেই সাথে করোনায় বাজারে মন্দাভাবের জন্য দুঃশ্চিন্তা বেড়েছে।

স্থানীয় প্রাণিসম্পদ বিভাগ জানিয়েছে, মিয়ানমার থেকে গরু আসা বন্ধ করতে পদক্ষেপ নিয়েছেন তারা।

এদিকে, কোরবানীর উপযোগী পশু বিক্রির জন্য নাটোরে এখনো কোন হাট বসার নিদের্শনা দেয়নি জেলা প্রশাসন। যে কয়টি হাট বসেছে সেগুলোও বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। গত বছরের মত এবারো কোরবানীর পশুর বাজার মন্দা যাবে বলে আশঙ্কা জেলার খামারিদের।

স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, হাট বসানোর ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করা হচ্ছে। শিগগিরি বিষয়টির সমাধান হবে বলে আশাবাদী তারা।

এছাড়া খামারিদের পশু বিক্রির জন্য অনলাইন প্লাটফর্মকে বেছে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.