কুর্মিটোলায় করোনার টিকা নিতে আসা প্রবাসীদের বিক্ষোভ

রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে মহামারি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিতে আসা প্রবাসীরা টিকা নিতে না পেরে বিক্ষোভ করেছেন। তাদের অভিযোগ, বিএমইটি (জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো) স্মার্টকার্ড, পাসপোর্ট, অনেকের জাতীয় পরিচয়পত্র থাকা সত্ত্বেও টিকা পাচ্ছেন না।

তারা বলেন, আমরা টিকার জন্য দীর্ঘদিন আন্দোলন করে এলেও আমাদের টিকা দেওয়া হচ্ছে না। কিন্তু একটি নির্দিষ্ট রিক্রুটিং এজেন্সির নতুন কর্মীরা টিকা রেজিস্ট্রেশন না করেই টিকা নিচ্ছেন। এসব প্রবাসীদের অভিযোগ রেজিস্ট্রেশন বন্ধ থাকায় টিকা পাচ্ছেন না তারা।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) বেলা ১১টায় হাসপাতালটিতে গিয়ে দেখা যায়, আন্দোলনরত প্রবাসীরা ভ্যাকসিন চাই, ভ্যাকসিন চাই স্লোগান দিতে থাকেন।

এসময় কেন্দ্রটিতে উপস্থিত ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ। বিক্ষোভরত প্রবাসীদের শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, প্রক্রিয়া শেষ করতে সময় প্রয়োজন। ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করার অনুরোধ করছি।

তিনি আরও বলেন, যারা বিক্ষোভ করছেন তাদের মধ্যে থেকে ১০০ জনকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) টিকা দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে টিকা দেওয়ার প্রক্রিয়া রোববার বা সোমবার প্রস্তত করে নেবে আইসিটি বিভাগ, যাতে সরাসরি নিবন্ধন করতে পারে। তবে কারও বিএমইটি রেজিস্ট্রেশন না থাকলে তা করে নিতে হবে।

এ বিষয়ে হাসপাতালটির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিল আহমেদ বলেন, আমাদেরকে মন্ত্রণালয় থেকে যেভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, আমরা সেভাবেই কার্যক্রম পরিচালনা করছি। কিন্তু কেউ যদি নিবন্ধন না করে টিকা নেওয়ার জন্য এসে বসে থাকে, তাহলে তো আমরা তাকে টিকা দিতে পারব না।

ফাইজার-সিনোফার্ম দুই টিকাই পাবেন প্রবাসীরা

এর আগে বুধবার (৩০ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত করোনা বুলেটিনে অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর ও টিকা কর্মসূচির পরিচালক ডা. শামসুল হক জানান, করোনা প্রতিরোধে বিদেশগামী প্রবাসীকর্মীদের যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজার এবং চীনের সিনোফার্মের দুই টিকাই দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে সৌদি আরব-কুয়েতসহ যেসব দেশে সিনোফার্মের টিকা নিয়ে জটিলতা রয়েছে, শুধুমাত্র তাদেরকেই ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে। আর বাকি সব প্রবাসীদের দেওয়া হবে সিনোফার্মের টিকা।

তিনি বলেন, যেসব কেন্দ্র থেকে আমাদের সিনোফার্মের টিকা দেওয়া হবে, সেসব কেন্দ্রে আমাদের প্রবাসী শ্রমিকরা নিবন্ধন করে টিকা নিয়ে কার্ড সংগ্রহ করে বিদেশ যেতে পারবেন। এক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশনের বিষয়টি দেখবে জনশক্তি উন্নয়ন ব্যুরো। সেখান থেকে আমাদের কাছে তালিকা এলেই আমরা সেটি সুরক্ষা সার্ভারে দিয়ে দেব, এরপরই তারা নিবন্ধন করতে পারবে।

ডা. শামসুল হক বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুধুমাত্র যারা প্রবাসী শ্রমিক এবং যেসব দেশে ফাইজার-মর্ডানা টিকা ছাড়া প্রবেশে জটিলতা রয়েছে তাদেরকেই ফাইজারের টিকা দেব। আমাদের জানামতে সৌদি আরব, কুয়েতসহ কয়েকটি দেশে নির্দেশনা আছে যে, ফাইজার মর্ডানার টিকা ছাড়া যেতে পারবে না। সেই সব দেশের প্রবাসী শ্রমিকরা ফাইজারের টিকা নেবেন, তবে এক্ষেত্রেও জনশক্তি উন্নয়ন ব্যুরোর মাধ্যমে আমাদের কাছে তালিকা আসতে হবে।

নিবন্ধন ছাড়া কাউকে টিকা দেওয়া হবে না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, প্রবাসী শ্রমিকরাও যদি নিবন্ধন ছাড়া টিকা কেন্দ্র এসে ভিড় জমান, তবুও কাউকে তাৎক্ষণিক নিবন্ধন করে টিকা দিতে পারবে না। যারা টিকা নেবেন, তাদের তালিকাটা আমাদের কাছে আসবে জনশক্তি উন্নয়ন ব্যুরোর মাধ্যমে। সে অনুযায়ী নিবন্ধন করে নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী কেন্দ্র থেকে টিকা নিতে পারবেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.