করোনার নতুন ধরনের বিরুদ্ধেও ভ্যাকসিন কার্যকর: মডার্না

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি মডার্না মনে করছে, তাদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের ক্ষেত্রেও প্রতিরোধী। তবে বিদ্যমান ভ্যাকসিন কতটা কার্যকর, তা দেখতে পরীক্ষা চালিয়েছে কোম্পানিটি। এতে দেখা যায়, দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনার নতুন ধরনের ক্ষেত্রে শরীরে অ্যান্টিবডি কমে যায়। তাই নতুন ধরন প্রতিরোধ করতে দুই ডোজের পর তৃতীয় আরেকটি ডোজ দেয়া নিয়ে কাজ শুরু করবে তারা। স্থানীয় সময় সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মডার্না জানায়, প্রাথমিক ল্যাব পরীক্ষায় দেখা যায়, করোনার নতুন ধরনের ক্ষেত্রে তাদের ভ্যাকসিন শরীরে দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। তাই সতর্কতার অংশ হিসেবে তৃতীয় ডোজের পরীক্ষা করা হবে।

মডার্নার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) স্টিফেন ব্যানসেল বলেন, ‘পরীক্ষার এসব নতুন ডাটা দেখে আমরা অনুপ্রাণিত। এর মধ্য দিয়ে করোনার নতুন ধরন প্রতিরোধে আমাদের ভ্যাকসিন যে নিরাপদ, সে আস্থা আরো মজবুত হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘বাড়তি সতর্কতার পাশাপাশি এমআরএনএ প্ল্যাটফর্মের নমনীয়তাকে কাজে লাগিয়ে আমরা দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া নতুন ধরনের বিরুদ্ধেভ্যাকসিনের বুস্টার ডোজ উন্নত করা নিয়ে কাজ করছি।’

সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনার নতুন ধরনের ক্ষেত্রে নিজেদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনের কার্যকারিতার পরীক্ষা চালিয়েছে মডার্না। নতুন ধরন রোধে বিদ্যমান ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা দেখতে করোনার ভ্যাকসিনের দুইটি ডোজই নিয়েছেন এমন আট ব্যক্তির রক্তের নমুনা নেয় কোম্পানিটি।

যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া করোনার বি.১.১.৭ ধরনের ক্ষেত্রে মডার্না উদ্ভাবিত করোনার ভ্যাকসিন শরীরের অ্যান্টিবডি অকার্যকর করে, এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনার বি.১.৩৫১ ধরনের ক্ষেত্রে মডার্নার টিকায় শরীরে অ্যান্টিবডির মাত্রা ছয় গুণ কমে যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের বায়োমেডিক্যাল ও জনস্বাস্থ্য গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথের সঙ্গে মিলে গবেষণাটি করছে মডার্না। গবেষণাপত্রটি একটি প্রিপ্রিন্ট সার্ভারে উপস্থাপন করেছে মডার্না, যাতে বিশ্বের অন্য বৈজ্ঞানিক প্রতিষ্ঠান তা বিশ্লেষণ করতে পারে।

আরও পড়ুন
Loading...