এ’বছর ডেঙ্গুর ধরন ভিন্ন

এবার ডেঙ্গুর ধরন ভিন্ন এবং বেশি মারাত্মক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। আক্রান্তদের বেশিরভাগই শিশু। তাদের জ্বরের ধরন বুঝে ওঠার আগেই রক্তের প্লাটিলেট কমে যাচ্ছে। দেরি হয়ে যাচ্ছে হাসপাতালে পৌঁছাতে। তাই লক্ষণ টের পেলেই দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

ছোট্ট শিশুর নাজুক শরীর আরো দুর্বল হয়ে পড়েছে ডেঙ্গুর আক্রমণে। কান্না দিয়েই মনের কষ্ট জানানোর চেষ্টা।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের ডেঙ্গু ইউনিটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে অনেক শিশুর অবস্থাই বেশ নাজুক।

রাজধানীতে প্রতিদিন কয়েকশ’ মানুষ ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসাতালে ভর্তি হচ্ছেন। ডেঙ্গুর লক্ষণ নিয়ে চিকিৎসকদের প্রাইভেট চেম্বারেও ভিড় বাড়ছে রোগীর।

ঢাকা শিশু হাসপতালে বুধবার পর্যন্ত ভর্তি আছে ৫০টি শিশু। যার মধ্যে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রয়েছে ৫ জন। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, একদিকে ডেঙ্গুর ধরনে নতুনত্ব দেখা যাচ্ছে। আবার শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার হার বেশি।

ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক সৈয়দ সফি আহমেদ জানান, লক্ষণ দেখা গেলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া এবং দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

বাসাবাড়িতে অব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিসপত্রে পানি জমতে না দেওয়া এবং দিনে ও রাতে মশারি টানানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশেজ্ঞরা।

Leave A Reply

Your email address will not be published.