এক ট্রলারে ৮৭ মণ ইলিশ, বিক্রি ২৭ লাখ!

গভীর বঙ্গোপসাগরে এক ট্রলারে ৮৭ মণ ইলিশ ধরা পড়েছে। আর সেই মাছ বিক্রি করা হয়েছে ২৭ লাখ টাকায়। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে দেশের বৃহত্তম মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে (বিএফডিসি) এফবি সাইফ ২ ট্রলারে ওই মাছ নিয়ে আসা হলে ক্রয় করেন সেমার্স সাইফ ফিশিং কোম্পানি অ্যান্ড কমিশন এজেন্ট।

শিল্পপতি মোস্তফা ইকবাল হোসেন মানিকের মালিকানা এফবি সাইফ ২ ট্রলারের মাঝি মো. জামাল হোসেন জানান, কয়েকদিন আগে বাজার সদায় নিয়ে গভীর সাগরে মাছ শিকার করতে যান। সাগরে গিয়ে মাছ ধরার জন্য কয়েকটি খেও দিতেই প্রচুর পরিমাণে মাছ ধরা পরে। ট্রলারের মাছ রাখার জায়গা পুরণ হওয়াতে দ্রুত পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে (বিএফডিসি) ঘাটে বৃহস্পতিবার রাতে আসা হয়। পরে শুক্রবার সকাল থেকেই মাছ বিক্রি শুরু হয়ে দুপুর ১২টায় শেষ হয়। ওই মাছ ক্রয় করেন সেমার্স সাইফ ফিশিং কোম্পানি অ্যান্ড কমিশন এজেন্ট।

এক একটি মাছের ওজন হবে দেড় থেকে দুই কেজি।

এক একটি মাছের ওজন হবে দেড় থেকে দুই কেজি।

এক ট্রলারে এতো পরিমাণ মাছ ধরা পড়ায় বিএফডিসি মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে উৎসুক মানুষের ভিড় দেখা গেছে।

স্থানীয়  সংবাদকর্মী এ.এস.এম. জসিম বলেন, আমার এই বয়সে এতো বড় ইলিশ এবং একই ট্রলারে এতো পরিমাণ মাছ দেখিনি। এক একটি মাছের ওজন হবে দেড় থেকে দুই কেজি।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, পাথরঘাটার মৎস্য খাতে এটি নজির।

মেসার্স সাইফ ফিশিং কোম্পানির মালিক পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির বলেন, বর্তমানে ইলিশের ভরা মৌসুম। কিন্তু এখন পর্যন্ত কাঙ্খিত ইলিশ জেলেদের জালে ধরা না পড়লেও একটি ট্রলারে এতো মাছ নজিরবিহীন। আমরা মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.