এএমআর মোকাবিলায় ৭ পদক্ষেপের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি তুলনায় অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিট্যান্সের (এএমআর) বেশি হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এএমআর মোকাবিলায় বিশ্বনেতাদের একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। মঙ্গলবার (৪ মে) ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে ‘অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স অন ওয়ান হেলথ গ্লোবাল লিডার্স গ্রুপ’এর দ্বিতীয় সভায় ভিডিও বার্তায় এ আহ্বান জানান তিনি।

সম্মেলনে এএমআর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ৭টি পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

৭টি পদক্ষেপ হলো-

১. এআরসির লক্ষ্য অর্জনের লক্ষ্যে বৈশ্বিক, আঞ্চলিক ও জাতীয় লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ, ব্যাপক মনিটরিং এবং প্রতিবেদন তৈরির ব্যবস্থা করা।

২. অ্যান্টিমাইক্রোবিয়ালের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে বিভিন্ন স্তরে গাইডলাইন ও নীতিমালা উন্নত করা।

৩. কার্যকর ও ব্যাপক এএমআর নজরদারি এবং সক্ষমতা তৈরি নিশ্চিত করতে পরস্পরের মধ্যে বৈজ্ঞানিক জ্ঞান ও কারিগরি সহায়তা বিনিময় করা।

৪. প্রযুক্তি হস্তান্তর এবং মালিকানা ভাগাভাগির মাধ্যমে সাশ্রয়ীমূল্যের ও কার্যকর অ্যান্টিবায়েটিক এবং অন্যান্য মেডিকেল সুবিধা সবার জন্য নিশ্চিত করা।

৫. স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর দিকে বিশেষ মনোযোগ দিয়ে এএমআর-নির্দিষ্ট এবং এএমআর-সংবেদনশীল কাজের জন্য পর্যাপ্ত এবং টেকসই অর্থায়ন করা।

৬. সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বে এএমআর প্রতিরোধে বিনিয়োগ করা।

৭. সবার জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক, সাশ্রয়ী ও টেকসই সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা।

প্রধানমন্ত্রী বিশ্বনেতাদের সতর্ক করেন বলেন, এএমআর কেবল মানুষ, প্রাণী ও উদ্ভিদের স্বাস্থ্যকেই বিপন্ন করবে না, পাশাপাশি তা খাদ্য সুরক্ষা এবং এসডিজি (টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য) অর্জনের অগ্রগতির জন্যও হুমকি স্বরূপ। এন্টি ড্রাগ রেজিস্ট্যান্স ভৌগলিক অবস্থান এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থা নির্বিশেষে যে কোনও ব্যক্তিকে প্রভাবিত করতে পারে।

আরও পড়ুন
Loading...