আজব দুনিয়া

মাতৃগর্ভে মারামারি করছে যমজ শিশু! ভাইরাল ভিডিও (ভিডিওসহ)

মাতৃগর্ভে মারামারি করছে যমজ শিশু! ভাইরাল ভিডিও (ভিডিওসহ)


Warning: printf(): Too few arguments in /home/shamajsh/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
যমজ ভাইবোনদের মধ্যে যেমন ভাব  থাকে, তেমন ঝগড়াও হয়। তাদের মধ্যে যেমন মিল থাকে তেমনি খুনসুটিও। কিন্তু তাই বলে মায়ের গর্ভেও এমনটা হবে, তা আশাতীত। এমনই এক আজব ভিডিও দেখে দারুন বিস্মিত হয়েছেন স্বয়ং চিকিৎসকরাও। চীনের ইয়ানচুন এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। এ ধরনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ওই ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, রীতিমতো মারামারি করছে যমজ সন্তানরা। জানা গেছে, নিয়মমাফিক চেকআপের জন্য চিকিৎসকের কাছে গিয়েছিলেন ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক নারী। চেম্বারে চিকিৎসক তার আল্ট্রাসাউন্ড করেন। সেখানেই দেখা যায়, মাতৃগর্ভে মারপিট শুরু করে দিয়েছে তার যমজ সন্তানরা। পুরো ঘটনাটাই মোবাইলে রেকর্ড করে রাখেন ওই নারীর স্বামী। ভিডিওটি গত বছরের। সদ্যই যমজ কন্যাসন্তানের জন্ম দিয়েছেন ওই নারী। তাদের নাম রাখা হয়েছে চেরি ও স্ট্রবেরি। সন্তান জন্মের পর ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন তাদের বাবা। সঙ্গে সঙ্গে ভিডিও
পানি আর বরফ হবে না, উপায় আবিষ্কার

পানি আর বরফ হবে না, উপায় আবিষ্কার


Warning: printf(): Too few arguments in /home/shamajsh/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
অনলাইন ডেস্ক: ফ্রিজে পানি বরফ হয়ে যাওয়ার ঘটনায় অনেকেই বিরক্ত। সম্ভবত এ অবস্থার অবসান হতে চলেছে। সুইজারল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব জুরিখ'র বিজ্ঞানীরা পানি বরফের পরিণত হওয়া রোধের উপায় আবিষ্কার করেছেন। গবেষণার এই ফল 'নেচার ন্যানোটেকনোলজি' জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।  গবেষকরা বলেন, তাঁরা গবেষণা করে দেখেছেন ফ্রিজে পানি আর বরফে পরিণত হবে না। এমনকি তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াসে চলে গেলেও তরলের স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন থাকবে। গবেষকরা তাঁদের প্রথম ধাপে 'লিপিড মেসোফেস' নামক 'নরম' জৈব পদার্থের নতুন গঠন তৈরি করেন। এ জন্য তাঁরা নতুন শ্রেণির লিপিড (ফ্যাট অণু) তৈরির পরিকল্পনা করেন। এসব লিপিড স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজেরাই একত্রিত হয় এবং অন্য ফর্মকেও একত্রিত করে। এ ছাড়া সেগুলো প্রাকৃতিক ফ্যাট অণুর মতো আচরণ করে। মেসোফেস' নামের 'নরম' জৈব পদার্থের গঠন  নির্ধারণ করে লিপিডের গঠনসহ তাপমাত্রা ও পানি। সাধারণ আইস ট্রে
এক সঙ্গে দুই নারীর ডিএনএ থেকে জন্মাল শিশু

এক সঙ্গে দুই নারীর ডিএনএ থেকে জন্মাল শিশু


Warning: printf(): Too few arguments in /home/shamajsh/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
অনলাইন ডেস্ক: গ্রিস ও স্পেনের প্রজননবিদ্যার চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বিশ্বে প্রথমবারের মতো তিনজনের ডিএনএ থেকে এক শিশুর জন্ম দিতে সক্ষম হয়েছেন তারা। এক নারীর বন্ধ্যাত্ব ঘোঁচানোর জন্য আরেক নারীর ডিএনএ নিয়ে ওই শিশুর জন্ম দেওয়া হয়েছে। ফলে ওই শিশুর জন্ম হয়েছে দু'জন নারীর ডিএনএ থেকে। যা চিকিৎসাবিদ্যার ইতিহাসে এক বিরল ঘটনা। ওই চিকিৎসকদের দাবি, তারা চিকিৎসা বিদ্যার ইতিহাসে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। বিশ্বব্যাপী নিঃসন্তান দম্পতি এ পদ্ধতির সুফল পাবে। গত মঙ্গলবার ওই শিশু জন্মগ্রহণ করেছে। ৩২ বছর বয়সী মা ও শিশু উভয়ের স্বাস্থ্য ভালো আছে। ইন-ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন বা আইভিএফ পদ্ধতিতে ওই শিশুর জন্ম দেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে শরীরের বাইরে শুক্রাণু একটি ডিম্বানুর সঙ্গে মেশানো হয়। তবে এ ধরনের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ব্রিটিশ প্রজনন বিশেষজ্ঞরা। এ ধরনের পদ্ধতিতে সন্তান জন্ম দেওয়ার ব্যাপারে নৈতিক জায়গা থেকে প্রশ
২২০ বছর পর চিলেকোঠায় মিলল টিপু সুলতানের তলোয়ার

২২০ বছর পর চিলেকোঠায় মিলল টিপু সুলতানের তলোয়ার


Warning: printf(): Too few arguments in /home/shamajsh/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
১৭৯৮-৯৯ সালে মহীশূরের চতুর্থ যুদ্ধ হয়েছিল। সেই যুদ্ধে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে পরাজিত হন টিপু সুলতান। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হয়ে সেই যুদ্ধে লড়াই করেছিলেন মেজর থমাস হার্ট। সম্প্রতি থমাস হার্টের উত্তরসূরিরা চিলেকোঠার ঘর পরিষ্কার করার সময়ে দেখতে পান ধুলো ভর্তি খবর কাগজের মধ্যে কী যেন রাখা আছে। সেগুলো নামাতেই তাদের চক্ষু চড়কগাছ। সেই কাগজের মধ্যে লুকানো ছিল বাঘছাপওয়ালা বন্দুক ও স্বর্ণ-খচিত তলোয়ার। বাড়ির ছাদ থেকে হঠাৎ এই জিনিস পেয়ে হকচকিয়ে যায় ওই ব্রিটিশ পরিবার। জানা গেছে, ওই বন্দুকটি টিপু সুলতানের। আর ওই তলোয়ার টিপু সুলতানের বাবা হায়দার আলির। চতুর্থ মহীশূর যুদ্ধের পর থমাস হার্ট ওই জিনিসগুলি প্রাসাদ থেকে নিয়ে চলে গিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। তারপর সেগুলিকে রেখে দিয়েছিলেন নিজের বাড়িতে। ২২০ বছর পর সেগুলো খুঁজে পেলেন থমাসের উত্তরসূরিরা। চলতি মাসের শেষের দিকে নিলামে উঠবে টিপু সুলতানের ওই বন্দু
১৭৫ বছরের পুরনো ‘রহস্যময়’ ব্যাটারি

১৭৫ বছরের পুরনো ‘রহস্যময়’ ব্যাটারি


Warning: printf(): Too few arguments in /home/shamajsh/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লেয়ারনডন ল্যাবরেটরির একটি ঘণ্টা ১৭৫ বছর ধরে বেজে চলেছে। সত্যের খাতিরে ‘বেজে চলেছে’ কথাটি বলা হচ্ছে। আসলে ঘণ্টাটি বাজার শব্দ কারো কানে পৌঁছায় না। কারণ ঘণ্টাটিকে একটি কাচের জারের মধ্যে রাখা রয়েছে। জারের কাছে কান নিয়ে গেলে এর কম্পন অনুভব করা যায়। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কিউরিওসিটি.কম-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, এই ঘটনার পিছনে রয়েছে এক ‘আপাত অক্ষয় ব্যাটারি’-র কেরামতি। ১৮৪০ সাল থেকে এই ব্যাটারি বাজিয়ে চলেছে ঘণ্টাটিকে। জানা গেছে, টেকনোলজির ভাষায় এই ব্যাটারিটিকে ‘ড্রাই পাইল’ বলা হয়। এটি বিশ্বের প্রথম কয়েকটি ইলেক্ট্রিক ব্যাটারির অন্যতম। এতে ব্যবহৃত হয়েছিল রুপা, দস্তা, গন্ধক, এমনকি, মুলো ও বিটের টুকরোও। আরও কি কি এই ব্যাটারির ভিতরে রয়েছে, তা জানা যায় না আজ। গবেষকরা এই ব্যাটারি খুলে পরীক্ষা করতে চাইলে সরাসরি না বলে দেওয়া হয়। কারণ, বে