ব্লগার নিলয় হত্যা: জিয়ার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ

ব্লগার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয় নীল হত্যা মামলায় সৈয়দ মো. জিয়াউল হক জিয়ার সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মন্ডলের আদালত এই আদেশ দেন। একইসঙ্গে এই সংক্রান্ত তামিল প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদালত আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন।

আদালতের খিলগাঁও থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) পুলিশের উপ-পরিদর্শক আশ্রাব আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ মামলার অপর আসামিরা হলেন- মো. মাসুম রানা, সাদ আল নাহিন, মো. কাওসার হোসেন খাঁন, মো. কামাল হোসেন সরদার, মাওলানা মুফতী আব্দুল গফ্ফার, মো. মর্তুজা ফয়সলে সাব্বির, মো. তারেকুল আলম ওরফে তারেক, খায়রুল ইসলাম ওরফে জামিল ওরফে রিফাত ওরফে ফাহিম ওরফে জিসান, আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাহাব, মোজাম্মেল হোসেন সায়মন, মো. আরাফাত রহমান ও মো. শেখ আব্দুল্লাহ ওরফে জুবায়ের।

গত ৪ অক্টোবর মামলাটিতে জিয়াসহ ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা জোনাল টিমের পুলিশ পরিদর্শক শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস। আসামিদের মধ্যে জিয়া পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। এরপর ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসিমের আদালত পলাতক আসামি জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

২০১৫ সালের ৭ আগস্ট রাজধানীর খিলগাঁওয়ের গোড়ানের ১৬৭ নম্বর বাড়ির পঞ্চমতলায় ভাড়া বাসায় খুন হন ব্লগার নিলয়। বাসা ভাড়া নেয়ার কথা বলে চার যুবক নিলয়ের বাসায় ঢুকে তার স্ত্রী আশামণিকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নীলয়কে হত্যা করে। ওই ঘটনায় ওই দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিলয়ের স্ত্রী অজ্ঞাত পরিচয় চারজনকে আসামি করে খিলগাঁও থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। আসামিদের মধ্যে খাইরুল ইসলাম, আবু সিদ্দিক এ মামলার সোহেল ও শেখ আব্দুল্লাহ আদালতের কাছে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

আসামিরা আদালতে জবানবন্দিতে ঘটনার মূলহোতা আসামি সৈয়দ মো. জিয়াউল হকের নাম প্রকাশ করে এবং নিজেদের জঙ্গিগোষ্ঠি আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য বলে পরিচয় দেয়। নিহত নিলয়ের বাড়ি পিরোজপুর জেলার চাল্লিশা গ্রামে। বাবা তারাপদ চট্টোপাধ্যায় নিজের কৃষি জমি দেখাশোনা করেন। নিলয় কাজ করতেন একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায়।

আরও পড়ুন
Loading...