বিনাদোষে কারাভোগ: আরমানকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের আদেশ স্থগিত

বিনোদোষে মাদক মামলায় কারাগারে থাকা পল্লবীর বেনারসি কারিগর মো. আরমানকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের হাইকোর্টের রায় চেম্বার আদালতে স্থগিত হয়েছে। মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান এই আদেশ দেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত ও রিটকারী পক্ষে রুহুল কুদ্দুস কাজল শুনানি করেন।

অমিত দাশ গুপ্ত গণমাধ্যমকে বলেন, আরমানকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্ট রায়ে যে নির্দেশনা দিয়েছিল, সে অংশটি আট সপ্তাহের জন্য স্থগিত করেছেন চেম্বার আদালত। এই সময়ের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ-টু আপিল করতে বলা হয়েছে। উল্লেখ্য, ‘কারাগারে আরেক জাহালম’ শিরোনামে গত বছর ১৮ এপ্রিল দৈনিক ‘আমাদের সময়’ পত্রিকায় একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

সেখানে বলা হয়, পল্লবীর বেনারসী কারিগর মো. আরমান নির্দোষ হয়েও ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে ৩ বছর ধরে কারাভোগ করছেন। রাজধানীর পল্লবী থানার একটি মাদক মামলায় ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি মাদক কারবারি শাহাবুদ্দিন বিহারি এ মামলার প্রকৃত আসামি। কিন্তু তার পরিচয়ে, তার পরিবর্তে সাজা ভোগ করছেন আরমান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শুধু বাবার নামে মিল থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে শাহাবুদ্দিন নামে আদালতে সোপর্দ করেছে বলে জোর অভিযোগ করেছে তার পরিবার। অন্যদিকে প্রকৃত আসামি শাহাবুদ্দিন কারাগারের বাইরে দিব্যি মাদক কারবার চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই প্রতিবেদন যুক্ত করে আরমানের মা গত বছর জুলাইয়ে আদালতে রিট আবেদন করেন। সেখানে আরমানের আটকাদেশ চ্যালেঞ্জের পাশাপাশি তার জন্য ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়। প্রাথমিক শুনানির পর হাইকোর্ট রুল জারি করে।

পল্লবীর বেনারসীর কারিগর মো. আরমানকে বেআইনিভাবে আটক রাখা হয়নি, তা নিশ্চিত করতে কেন তাকে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয় রুলে। সেই সঙ্গে আরমানের আটকাদেশ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং কেন তাকে মুক্তি ও ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়। জারি করা এ রুল যথাযথ ঘোষণা করে গত বছর ৩১ ডিসেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন
Loading...