প্রধানমন্ত্রীর অনুদান শিল্পী নমিতা ঘোষের চিকিৎসা

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী নমিতা ঘোষের ক্যান্সার ও চোখের চিকিৎসার জন্য ২১ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বুধবার এ তথ্য জানিয়ে বলেন, “শিল্পী নমিতা ঘোষের পরিবারের কাছে এই টাকার চেক পাঠিয়ে দেওয়া হবে।” একাত্তরের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানী বাহিনীর গণহত্যা শুরু হয়, পরদিনই চট্টগ্রামে চালু হয় ‘স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্রের’ কার্যক্রম।

কালুরঘাট বেতারকেন্দ্র আক্রান্ত হলে সেখানকার ট্রান্সমিটারটি সীমান্ত পার করে নিয়ে যান অসীম সাহসী বেতারকর্মীরা। এরপর ভারত সরকারের কাছ থেকে পাওয়া ৫০ কিলোওয়াট ক্ষমতার একটি ট্রান্সমিটার নিয়ে একাত্তরের ২৫ মে কলকাতার বালিগঞ্জ রোডে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কার্যক্রম শুরু হয়।

এর চারদিনের মাথায় স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রে প্রথম নারী শিল্পী হিসেবে নিয়মিত সংগীত পরিবেশন শুরু করেন নমিতা ঘোষ, তখন তার বয়স ১৪ বছর। নমিতার মা জসোদা ঘোষ সে সময় রেডিওতে নিয়মিত সংগীত পরিবেশন করতেন। ঢাকায় পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যা শুরু হলে ২৭ মার্চ বুড়িগঙ্গা পেরিয়ে কেরাণীগঞ্জ হয়ে কুমিল্লা দিয়ে আখাউড়া সীমান্ত পার হন তারা।

নরসিঙ্গরে শিল্পী আব্দুল জব্বার ও আপেল মাহমুদের সঙ্গে দেখা হয় নমিতার। তখন সেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে ক্যাম্পে গিয়ে গান গেয়ে অনুপ্রেরণা দেওয়ার পরিকল্পনা চলছিল।
আগরতলায় থাকতেই মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্রের কাজে যুক্ত হন নমিতা। পরে সেই প্রামাণ্যচিত্র যুদ্ধের সময় ভারতের বিভিন্ন সিনেমা হলে দেখানো হয়।

মে মাসে মায়ের সঙ্গে আগরতলা থেকে বিমানে করে কলকাতায় পৌঁছান নমিতা। পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম প্রেস সচিব, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আমিনুল হক বাদশার উৎসাহে যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রে। স্বাধীনতা যুদ্ধের এই কণ্ঠযোদ্ধা দীর্ঘদিন ধরেই ক্যান্সার ও চোখের জটিল অসুখে ভুগছেন।

ইহসানুল করিম বলেন, শিল্পী নমিতা ঘোষ সশরীরে উপস্থিত হতে না পারায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার চিকিৎসার জন্য অর্থ পরিবারে কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন
Loading...