উপজেলা পরিষদের চতুর্থ ধাপের ভোটগ্রহণ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার: আজ রবিবার উপজেলা পরিষদের চতুর্থ ধাপের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। এ ধাপে ২২ জেলার ১০৭টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে ছয়টি জেলার সদর উপজেলায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হচ্ছে।

সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত। নির্বাচন কমিশন এ ধাপে ১২২টি উপজেলার নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করেছিল। কিন্তু এ ধাপেও ১৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান—এ তিন পদেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ফলে ওই ১৫টি উপজেলায় ভোটাররা ভোট দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে না। এ ছাড়া আদালতের আদেশ প্রতিপালনের জন্য চারটি ও অবৈধ প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে দুটি উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। আর তৃতীয় ধাপ থেকে স্থানান্তর করা ছয়টি উপজেলা এ ধাপে যোগ হয়েছে। সব মিলিয়ে ভোট হতে যাচ্ছে ১০৭ উপজেলায়।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের তথ্য অনুসারে এ ধাপে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ৮৮ জন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৯, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২২ ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৭ জন।

এদিকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে এ ধাপে ও ক্ষমতাসীন দলের তিনজন সংসদ সদস্যকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। গতকাল শনিবার ইসি সচিবালয়ের উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত ইসির এই নির্দেশনা তাঁদের কাছে পাঠানো হয়েছে। গতকাল শনিবারের মধ্যে যে তিন সংসদ সদস্যকে এলাকা ছাড়তে বলা হয়েছে তাঁরা হলেন ময়মনসিংহ-৯ আসনের আনোয়ারুল আবেদীন খান, যশোর-৪ আসনের রণজিত কুমার রায় ও নোয়াখালী-৪ আসনের মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী।

যে ১৫ উপজেলায় সব পদে বিনা ভোটে নির্বাচিত : ভোলা জেলার সদর, মনপুরা ও চরফ্যাশন; যশোরের শার্শা; ময়মনসিংহের গফরগাঁও; ঢাকার সাভার ও কেরানীগঞ্জ; কুমিল্লার লাকসাম, নাঙ্গলকোট, মনোহরগঞ্জ, দেবিদ্বার ও চৌদ্দগ্রাম; নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা এবং ফেনীর পরশুরাম।

স্থগিত ছয় উপজেলা : আদালতের নির্দেশনা ও নির্বাচন কমিশনের আদেশে স্থগিত ছয় উপজেলা হলো খুলনার ডুমুরিয়া, ফেনীর ছাগলনাইয়া, ময়মনসিংহের ত্রিশাল, কুমিল্লার বরুড়া, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া ও নোয়াখালীর কবিরহাট।

যে ছয়টি উপজেলায় ইভিএম : পটুয়াখালী সদর, বাগেরহাট সদর, ময়মনসিংহ সদর, মুন্সীগঞ্জ সদর, ফেনী সদর ও কক্সবাজার সদর। এর মধ্যে ফেনী সদরে শুধু চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হবে। এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থীরা বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে গেছেন। আর ময়মনসিংহ সদরে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার কারণে ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে।

আরো যে ১০১ উপজেলায় ভোট : সাধারণ ব্যালট পেপারে আরো যে ১০১ উপজেলায় আজ ভোট সেগুলো হলো পটুয়াখালীর দশমিনা, গলাচিপা, কলাপাড়া, মির্জাগঞ্জ, দুমকী ও বাউফল; ভোলার দৌলতখান, তজুমদ্দিন ও লালমোহন; বরগুনার সদর, আমতলী, বেতাগী, বামনা ও পাথরঘাটা; পিরোজপুরের সদর, ইন্দুরকানী, কাউখালী, ভাণ্ডারিয়া, নেছারাবাদ ও নাজিরপুর; যশোরের সদর, বাঘারপাড়া, ঝিকরগাছা, চৌগাছা, অভয়নগর, মণিরামপুর ও কেশবপুর; খুলনার দিঘলিয়া, কয়রা, দাকোপ, পাইকগাছা, রূপসা, তেরখাদা, ফুলতলা ও বটিয়াঘাটা; বাগেরহাটের মোংলা, মোরেলগঞ্জ, চিতলমারী, কচুয়া, রামপাল, ফকিরহাট, মোল্লাহাট ও শরণখোলা; ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট, ধোবাউড়া, ফুলপুর, ঈশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া, গৌরীপুর, নান্দাইল, মুক্তাগাছা ও ভালুকা; নরসিংদী সদর; মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান, লৌহজং, শ্রীনগর, টঙ্গিবাড়ী ও গজারিয়া; নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার, সোনারগাঁ ও রূপগঞ্জ; ঢাকার ধামরাই, দোহার ও নবাবগঞ্জ; টাঙ্গাইলের সদর, ধনবাড়ী, মধুপুর, মির্জাপুর, দেলদুয়ার, নাগরপুর, ঘাটাইল, ভূঞাপুর, কালিহাতী, গোপালপুর, বাসাইল ও সখিপুর; কুমিল্লার তিতাস, চান্দিনা, মুরাদনগর, বুড়িচং, ব্রাহ্মণপাড়া, মেঘনা, ও হোমনা; নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ, সেনবাগ, সোনাইমুড়ী, সুবর্ণচর ও চাটখিল; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর, সরাইল, আখাউড়া, আশুগঞ্জ, নাসিরনগর ও নবীনগর; ফেনীর ফুলগাজী, সেনাগাজী ও দাগনভূঁঞা; দিনাজপুরের সদর; গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ; কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী এবং চট্টগ্রামের লোহাগড়া।

print

Facebook Comments

৬৫ বার পঠিত